Breaking News

মুনিয়া অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন বসুন্ধরা এমডি ও তার বাবার নামে মামলা

মুনিয়া অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন বসুন্ধরা এমডি ও তার বাবার নামে মার্ডার রেপ মামলা

বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি সায়েম সোবহান আনভির and আনভিরের বাবা মা স্ত্রী সহ মোট ৮ জনের নামে
দুইটি মামলা করেছেন মোশরাত জাহান মুনিয়ার বড় বোন নুসরাত জাহান তানিয়া। and
৬ সেপ্টেম্বর নারী because ও শিশু নির্যাতন দমনের ৮ নং ট্রাইবুনালে এ মামলাটি করা হয়।
and ট্রাইবুনাল বিচারক তানিয়ার ভাষ্য রেকর্ড করে আমলে নেন।

so এই মামলায় অন্যান্য আসামী হলেন আনভিরের বাবা বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান, and
আনভিরের স্ত্রী and আনভিরের মা and মডেল পিয়াসা ও শারমিন মিম রিপন।
Because মুনিয়া হত্যা মামলাটি আদালত আমলে নিয়ে পি বি আই টিমকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। but
তদন্ত শেষে পুলিশের দেয়া ফাইনাল প্রতিবেদনের উপর ভিত্তি করে and আদালতের দেয়া রায়ে গত আগস্টের ১৮ তারিখে
বসুন্ধরা এমডি মুনিয়া আত্বহত্যা প্ররোচনার মামলা থেকে মুক্ত হলেও so মুনিয়ার বড় বোন তানিয়া বলেন
৯/১ ও ৯/২ সেকশনে ধর্ষন মামলা and ৩০২/৩৪ সেকশনে হত্যা মামলা করেছি ৮ জনের বিরুদ্ধে। and
আদালতের উপর because তানিয়া খুশি তার মামলা আমলে নেয়ার জন্য। and

মুনিয়ার লাশ উদ্ধারের ঘটনাকে কেন্দ্র করে তানিয়ার করা

মুনিয়ার লাশ উদ্ধারের ঘটনাকে কেন্দ্র করে তানিয়ার করা মামলার এজাহারের একটি কপি বাংলাদেশের একটি টিভি চ্যানেলের হাতে রয়েছে। Because
মামলার এজাহারে অভিযোগ করা হয় যে লাশ উদ্ধারের সময় করা ময়না তদন্তের ফলাফল উল্লেখ করে বলা হয়েছে যে
মুনিয়া ২ থেকে ৩ সপ্তাহের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন। and এজাহারে আরো লেখা because আছে মুনিয়া ডায়েরি লিখতেন। so
তার বাসা থেকে ডায়েরি উদ্ধার হয়েছে ৪’টি Because যার মধ্যে আনভির্র সাথে মেলামেশা ও শারীরিক সম্পর্কের কথা তারিখ সহ লেখা আছে। and

এক পর্যায়ে বিয়ের জন্য চাপ দিলে কথা কাটাকাটি হয় so প্রথম আসামী হুমকি প্রদান করে ভিকটিমকে। and
ময়না তদন্তে মৃত্যুর পূর্বে ধর্ষিত হবার প্রমান মিলেছে। এজাহারে সবাইকে সমন্বয় করে বলা হয়েছে Because
আসামী গনের যোগসাজশে ভুক্তভোগীকে বাসা থেকে পালাতে না দিয়ে ধর্ষন করার জন্য হামলা করে মেরে ফেলা হয়। and
এরপর হত্যাকে আত্বহত্যা হিসেবে চালানোর জন্য গলায় ওরনা পেচিয়ে ফ্যানের সাথে ঝুলিয়ে দেয়া হয়।

so উল্লেখ্য যে গত এপ্রিল মাসের ২৬ তারিখে রাজধানীর আভিজাত এলাকার গুলশানের একটি ফ্লাট থেকে ওরনা পেচানো অবস্থায়
মৃত মোসরাত জাহান মুনিয়ার লাশ পাওয়া যায়। but রহস্যজনক ভাবে মুনিয়ার লাশ পাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে and
সমাধানের লক্ষে মুনিয়ার বড় বোন তানিয়া বাদী হয়ে বসুন্ধরার ব্যাবস্থাপনা পরিচালক এমডি আনভিরের নামে গুলশান থানায় একটি মামলা করেন।
and এই মামলার তদন্ত প্রতিবেদন জুলাই মাসের মাঝামাঝি সময়ের দিকে আদালতে জমা দেয়া হয় and
উক্ত মামলার তদন্তকারী ও গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার আবেদনের প্রেক্ষিতে মুক্ত করা হয় এমডি সোবহান আনভিরকে।

About admin

Check Also

বাড়িতে ও টিভি অফিসে র‍্যাব অভিযানে হেলেনা জাহাঙ্গীর গ্রেফতার

বাড়িতে ও টিভি অফিসে র‍্যাব অভিযান চালিয়ে হেলেনা জাহাঙ্গীরকে গ্রেফতার করেছে বৃহস্পতিবার রাতে আওয়ামী লীগ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *